ওকে মারতে বাধা দেয়ার সুযোগ ছিল না, উল্টো আমাদেরই মারত: তোহা

দৈনিক আজকালের দর্পন : বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় বুয়েটের ছাত্র আবরার ফাহাদকে মারতে বাধা দেয়া বা নিষেধ করার কোনো সুযোগ ছিল না বলে জানিয়েছেন মামলার আসামি আসামি বুয়েট ছাত্রলীগের আইনবিষয়ক উপসম্পাদক হোসেন মোহাম্মদ তোহা।আজ ১১ অক্টোবর শুক্রবার ঢাকা মহানগর হাকিম মো. সারাফুজ্জামান আনছারীর আদালত তোহার ১০ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।এ সময় আসামি হোসেন মোহাম্মদ তোহা বলেন, ‘আবরারকে মারতে বারণ করা কিংবা বাধা দেয়ার সুযোগ ছিল না। পলিটিক্যাল প্রটোকল ভাঙলে (না মানলে) আমাদেরই উল্টো মারত। তাই আবরারকে শিবির সন্দেহে ধরে মারধর করা হয়।’এর আগে এদিন দুই আসামি বুয়েট ছাত্রলীগের আইনবিষয়ক উপসম্পাদক অমিত সাহা ও হোসেন মোহাম্মদ তোহার ১০ দিন করে রিমান্ডের আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা।এদিকে আবেদনে বলা হয়, ওই দুই আসামি ও তাদের সহযোগী আসামিরা গত ৬ অক্টোবর রাত ৮টার দিকে শিক্ষার্থী আবরারকে শেরে বাংলা হলের তার রুম থেকে হত্যার উদ্দেশ্যে ডেকে নিয়ে যায়।এরপর ৭ অক্টোবর রাত আড়াইটা পর্যন্ত ওই হলের ২০১১ ও ২০০৫ নম্বর রুমের ভেতর নিয়ে আসামিরা পূর্বপরিকল্পিতভাবে ক্রিকেট স্ট্যাম্প ও লাঠি-সোটা এবং রশি দিয়ে শরীরের বিভিন্ন জায়গায় প্রচণ্ড মারধর করে। এতে ঘটনাস্থলেই আবরার মারা যায়।

শর্টলিংকঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।