চামেলীর চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন …. প্রধানমন্ত্রী

দৈ‌নিক আজকা‌লের দর্পন :রাজশাহী জেলা প্রশাসক এস এম আব্দুল কাদের বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র প্রটোকল অফিসার খুরশীদুল আলম বুধবার বিকেলে ফোন করে জানিয়েছেন, জাতীয় মহিলা ক্রিকেট দলের সাবেক খেলোয়ার অসুস্থ চামেলী খাতুনের চিকিৎসার সব দায়িত্ব প্রধানমন্ত্রী বহন করবেন। এ জন্য তাকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে। এর প্রেক্ষিতে রাতেই চামেলীর শারীরিক অবস্থার কথাসহ বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষার রিপোর্ট ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। বর্তমানে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিষয়টি সমন্বয় করা হচ্ছে। শিগগিরই চামেলীর উন্নত চিকিৎসা শুরু হবে বলেও জানান রাজশাহী জেলা প্রশাসক।বুধবার (৩১ অক্টোবর) রাতে রাজশাহী জেলা প্রশাসক (ডিসি) এস এম আব্দুল কাদের দৈ‌নিক আজকা‌লের দর্পনকে এতথ্য নিশ্চিত করেছেন। এর আগে একইদিন সকালে তার চিকিৎসার দায়িত্ব নেন রাজশাহী সিটি করপোরেশনের (রাসিক) মেয়র এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন।এদিকে বুধবার সকালে চামেলীকে তার বাসায় দেখতে যান রাজশাহীর সিটি করপোরেশনের মেয়র এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন। তাৎক্ষণিক তিনি চামেলীর উন্নত চিকিৎসার জন্য নগদ এক লাখ টাকা আর্থিক প্রদান করেন। এর আগে চামেলীর চিকিৎসার জন্য সহযোগিতায় এগিয়ে আসেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান ও জাতীয় ক্রিকেট দলের দলের আরেক সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান। সাকিব, মোস্তাফিজের পর সাবেক ক্রিকেটার অসুস্থ চামেলী খাতুনের চিকিৎসার সার্বিক দায়িত্ব নিয়েছিলো বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। বুধবার (৩১ অক্টোবর) বিষয়টি দৈ‌নিক আজকা‌লের দর্পনকে নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক, বিসিবি পরিচালক ও কোয়াব (ক্রিকেটার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ) সভাপতি নাইমুর রহমান দুর্জয়।

দুর্জয় বলেন, ‘চামেলীর দায়িত্ব নিতে কোয়াব প্রস্তুত ছিল। কিন্তু বিসিবি দায়িত্ব নিয়ে নেয়ায় এখন আর তার প্রয়োজন হচ্ছে না। তবে ভবিষ্যতে কোনো প্রয়োজন হলে আমরা তার পাশে থাকবো।’ তাই নিজের চিকিৎসার জন্য ১০ লাখ টাকা জোগাড় করতে হিমশিম খেতে হচ্ছিল। চামেলীর দুদর্শার চিত্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে উঠে আসলে তা নজরে আসে সবার। তাকে সাহায্য করতে হাত বাড়িয়ে দেন প্রধানমন্ত্রী, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড ও ক্রিকেটারসহ সমাজের বিত্তবানরা।দেরিতে হলেও দুর্দিনে সবাইকে কাছে পেয়ে মানসিক শক্তি ফিরে পাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন চামেলি খাতুন। এজন্য তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ সংশ্লিষ্ট সবার কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন। একই সঙ্গে তার সুস্থতার জন্য দোয়া প্রার্থনা করেছেন।
১৯৯৯ থেকে ২০১১ পর্যন্ত চামেলী খাতুন দাপটের সঙ্গে নিজের নৈপূণ্যতা দেখিয়েছেন জাতীয় পর্যায়ের অ্যাথলেটিক্স, ফুটবল এবং প্রমীলা ক্রিকেটে। আট বছর থেকে লিগামেন্ট ছিঁড়ে যাওয়াসহ মেরুদণ্ডের হাড়ের ব্যথা নিয়ে বর্তমানে মুমূর্ষু অবস্থায় পৌঁছেছেন চামেলী খাতুন। মেরুদণ্ডের দুই হাড়ের ফাঁকে থাকা নরম ডিস্কগুলো নষ্ট হয়ে যাওয়ায় অবশ হয়ে যাচ্ছে তার পুরো ডান পাশ। এই অবস্থায় দ্রুত দেশের বাইরে সার্জারির পরামর্শ দেন চিকিৎসকরা। চামেলী চাকরি করেন আনসার ভিডিপি অফিসে। অসুস্থতার কারণে সেই চাকরিও যায় যায় অবস্থা।

শর্টলিংকঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।