ফের ধ্বংসের মুখে পৃথিবী, মহাবিপদসংকেত জারি করল নাসা

দৈনিক আজকালের দর্পন ডেস্ক :   নাসা জারি করল মহাবিপদসংকেত। প্রায় আধ কিলোমিটারের চেয়ে বড় আকারের একটি উল্কা পিণ্ড পৃথিবীর দিকে ধেয়ে আসছে। প্রতি ঘণ্টায় উল্কাটির গতিবেগ ১১,২০০ মাইল। নাসার খবর অনুযায়ী ৬ জুন এটা পৃথিবীর সংস্পর্শে আসবে। এম্পায়র স্টেট বিল্ডিংয়ের থেকেও বড় আকারের এই উল্কা পিণ্ড। এই উল্কা পিণ্ডের নাম রক -১৬৩৩৪৮ (২০০২ এনএন৪)। আশা করা হচ্ছে যদি এই গ্রহাণু পৃথিবীর কাছ দিয়ে বেরিয়ে যায়। পিণ্ডটি লম্বায় ২৫০ থেকে ৫৭০ মিটারের মতো। পাশাপাশি এটা ১৩৫ মিটার চওড়া। এই উল্কাটি সূর্যের কাছ থেকে পৃথিবীর কক্ষের দিকে আসছে। সেন্টার ফর আর্থ অবজেক্ট স্টাডিজের মত অনুসারে ২১ মে একটি উল্কা পৃথিবীর ভীষণ কাছ দিয়ে গেছে। ২০০০-এর বেশি উল্কাকে প্রতি মুহূর্তে নজরে রেখে চলেছে নাসা। তবে এই উল্কার থেকে সেভাবে ক্ষ’তি হওয়ার সম্ভবনা ক্ষীণ। এই উল্কা পিণ্ডের নাম রক -১৬৩৩৪৮ (২০০২ এনএন৪)। আশা করা হচ্ছে যদি এই গ্রহাণু পৃথিবীর কাছ দিয়ে বেরিয়ে যায়। পিণ্ডটি লম্বায় ২৫০ থেকে ৫৭০ মিটারের মতো। পাশাপাশি এটা ১৩৫ মিটার চওড়া।  এই উল্কাটি সূর্যের কাছ থেকে পৃথিবীর কক্ষের দিকে আসছে। সেন্টার ফর আর্থ অবজেক্ট স্টাডিজের মত অনুসারে ২১ মে একটি উল্কা পৃথিবীর ভীষণ কাছ দিয়ে গেছে। ২০০০-এর বেশি উল্কাকে প্রতি মুহূর্তে নজরে রেখে চলেছে নাসা। তবে এই উল্কার থেকে সেভাবে ক্ষ’তি হওয়ার সম্ভবনা ক্ষীণ। নাসা-র মহাকাশ বিজ্ঞানীদের মতে এই উল্কার পৃথিবীর স”ঙ্গে সং’ঘর্ষ হওয়ার সম্ভবনা ১ শতাংশের চেয়েও কম। তারপরেও এর ওপর কড়া নজর রাখছেন বিজ্ঞানীরা। কখনও কখনও মহাকর্ষের কারণে একদম শেষ সময়ে পৃথিবীর কাছে চলে আসে এই ধরনের গ্রহাণু৷

শর্টলিংকঃ