বন্দর-পতেঙ্গার ৪০ স্পটে জুয়ার রমরমা, থানার বাণিজ্য ৫ কোটি!

জুয়ার রমরমা এর ছবির ফলাফল

; চট্টগ্রাম নগরের বন্দর, পতেঙ্গা ও ইপিজেড এলাকায় প্রশাসনকে মাসোহারা দিয়ে চলে রমরমা জুয়ার আসর। জানা গেছে, তিনটি থানা এলাকার অন্তত ৪০টি স্পটে চলছে জুয়ার খেলা। প্রতিটি জুয়ার ঘর থেকে থানা মাসিক মাসোহারা নিচ্ছে ১ লাখ ১০ হাজার থেকে ১ লাখ ২০ হাজার টাকা।

সংশ্লিষ্ট থানাগুলোর ক্যাশিয়াররা পৃথকভাবে জুয়ার ঘর থেকে বাণিজ্য করে মাসিক প্রায় পাঁচ কোটি টাকা। শুধু তাই নয়; জুয়ার ঘর থেকে মাসিক ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকা মাসোহারা নেয় মহানগর গোয়েন্দা পুলিশও। এই চাঁদার অংশ থেকে বাদ পড়ছেন না কথিত সাংবাদিক, স্থানীয় যুবলীগ ও ছাত্রলীগের প্রথম সারির নেতারাও।

জানা গেছে, সংশ্লিষ্ট থানার ক্যাশিয়ারের মাধ্যমে চুক্তি মোতাবেক জুয়ার ঘরের টাকা কালেকশান করা হয়। এ জুয়ার ঘর থেকে আলাদাভাবে থানার প্রতিজন এসআই ৫০০ ও এএসআই ৩০০ টাকা নিচ্ছেন। এছাড়া চাঁদার ভাগ পান কথিত সাংবাদিক ও স্থানীয় যুবলীগ-ছাত্রলীগের নেতারা।

সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে, ইপিজেডে ২৫টি, বন্দরে ১০টি এবং পতেঙ্গা থানা এলাকায় রয়েছে ৫টি জুয়ার ঘর। সকাল-রাত পর্যন্ত চলা জুয়া খেলার একটি অংশ হচ্ছে নিম্ন-মধ্যবিত্ত শ্রেণী ও আরেকটি অংশ হচ্ছে কর্ণফুলী ও সিইপিজেডের পোশাক শ্রমিক। অধিকাংশ জুয়ার আসর দিনের চেয়ে রাতের বেলায় জমজমাট হয়।

সম্পর্কিত ছবি

স্থানীয়রা দৈনিক আজকালের দর্পনকে জানান, থানাকে মাসিক মোটা অংকের টাকা দিলেই মেলে জুয়ার ঘরের ‘অনুমোদন’। প্রতিটি আসর থেকে থানার ক্যাশিয়ার এসেই টাকা নিয়ে যায়। মাঝে প্রশাসনের ঝটিকা অভিযানের পর কয়েকদিন বন্ধ থাকে জুয়ার ঘর। থানাকে আগের চুক্তির দ্বিগুণ টাকা দিয়ে বন্ধ হওয়া জুয়ার ঘরগুলো আবার চালু হয়।সম্পর্কিত ছবি

জানা যায়, চলতি বছরের ১১ ফেব্রুয়ারি পতেঙ্গা থানার ধুমপাড়া এলাকার মোজাফফর বিল্ডিংয়ে জুয়ার আসরে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আলী হাসানের নেতৃত্বে অভিযান চালায় র‌্যাব। এ সময় ৫২ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে জরিমানা এবং ২৬ জন জুয়াড়িকে কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

শর্টলিংকঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।