বেসরকারি হাসপাতাল ক্লিনিক অধিগ্রহণ করে সেনাবাহিনীকে দায়িত্ব দিন

দৈনিক আজকালের দর্পণ ;
মহামারী করোনার পূর্বে চট্টগ্রামে বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিক কতৃপক্ষ জনগণের সেবা দিয়েছেন, জনশ্রুতি আছে বিপুল অর্থ সম্পদের মালিকও হয়েছেন । আজ কেন অসুস্থদের চিকিৎসা দিতে অনিহা? যুদ্ধ এবং আপকালীন সেবা দিতে জাতিসংঘ শান্তি মিশনে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী, বিমান বাহিনী বিশেষ কৃতিত্ব অর্জন করেছে এবং নিজ প্রশিক্ষণ ও দৃঢ়তা মানবিকতার গুণে দেশকে বিশ্বের দরবারে সম্মানের জায়গায় নিয়ে গেছেন।
চট্টগ্রামে করোনা রোগীর সেবা নিয়ে বর্তমানে যে অবস্থা দৃশ্যমান বা গণমাধ্যমে ও অনলাইন অফলাইন এর মাধ্যমে আমরা দেখছি তা শুধু দুঃখজনকই নয়, মানুষের মৌলিক অধিকার নিয়ে একশ্রেণির ব্যক্তিদের চরম উদাসীনতা। ক্লিনিক মালিকগণ সেনাবাহিনীর উপস্থিতিতে সরকারের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের সাথে সেবা দেওয়ার চুক্তি করে আজ অবদি তা কার্যকর করছে না, কেন করছে না তার কোন প্রকার আনুষ্ঠানিক বক্তব্য তাদের পক্ষ থেকে এখনো আসে নাই । অসুবিধা থাকলে তা তো জাতিকে জানাতে হবে কিন্তু তা না করে তারা তাদের মতোই চলছে। এইভাবে একটি দেশের চিকিৎসা ব্যবস্থা চলতে পারে না। বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিক এর এই জাতীয় আচরণ সরকারকে প্রশ্নবিদ্ধ ও বিব্রত করেছে এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর গৃহীত পদক্ষেপ বাস্তবায়নে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করছে।
এই মুহুর্তে কাল বিলম্ব না করে চট্টগ্রামে সরকার যেকোন ২টি বা ৩টি বেসরকারি হাসপাতাল / ক্লিনিক জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে অধিগ্রহণ করে (খন্ডকালিন সময়ের জন্য বা আপদকালিন সময়ের জন্য) বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর মেডিকেল কোর চট্টগ্রাম ব্রিগেডের হাতে হস্তান্তর করার আহবান করছি। আশাকরি আপদকালিন চিকিৎসায় অত্যন্ত দক্ষ বাংলাদেশ সেনাবাহিনী প্রয়োজনে নৌ ও বিমান বাহিনীর সহায়তা নিয়ে হাসপাতাল পরিচালনা করে চট্টগ্রামবাসীকে সুস্থ করে তুলবেন।
হাসপাতাল পরিচালনায় অধিগ্রহণকৃত হাসপাতাল / ক্লিনিক এর ডাক্তার, নার্স, ওয়ার্ড বয়, টেকনিশিয়ান সহ সকল মেডিকেল স্টাফ অন্তর্ভুক্ত থাকবেন। চট্টগ্রামের আপামর জনসাধারন আপনার / আপনাদের সাথে থাকবে।
কোন ছাড়, দয়া বা করুণা নয় প্রশাসনকে কঠোর হতে হবে চট্টগ্রামের সাধারণ জনগণের স্বার্থে । মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে এই অধিগ্রহণকৃত হাসপাতাল / ক্লিনিক সমূহ পরিচালনায় সেনাবাহিনীকে প্রণোদনা বা এককালীন দেওয়ার অনুরোধ করছি।
আমরা চিকিৎসা নিয়ে বাঁচতে চায়, আমাদের বাঁচান – আল্লাহ সহায়।
লেখক :
শেখ ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী
অ্যাডভোকেট
বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট ও জজ কোর্ট চট্টগ্রাম।
সাবেক সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক –
চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতি।
আইন বিষয়ক সম্পাদক-
চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামীলীগ

শর্টলিংকঃ